সরল বাক্য যৌগিক বাক্য জটিল বাক্য কি?

Dear aspirants,
এই অংশে সরল বাক্য যৌগিক বাক্য এবং জটিল বাক্য  সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা রয়েছে | বাক্য পরিবর্তন করার নিয়ম গুলি খুব সহজ ভাষায় সুন্দরভাবে আলোচনা করা হয়েছে | ছাত্র-ছাত্রীরা এই নিয়মগুলি ভালোভাবে আয়ত্ত করতে পারলে বাক্য পরিবর্তন এর কোন সমস্যা হবে না | এই সংক্রান্ত প্রশ্ন উত্তর জানতে click here

সরল বাক্য যৌগিক বাক্য চেনার উপায়

বাক্যের শ্রেণীবিভাগ:বাক্যকে দুই শ্রেণীতে ভাগ করা যায় (১) বাক্যের গঠনগত শ্রেণীবিভাগ (২) বাক্যের অর্থগত শ্রেণীবিভাগ

বাক্যের গঠনগত শ্রেণীবিভাগ:গঠনগতভাবে বাংলা বাক্যকে সাধারণত তিন ভাগে ভাগ করা যায়। যথা:- ক)সরল বাক্য খ) যৌগিক বাক্য এবং গ) জটিল বাক্য এছাড়াও ভাষা বিজ্ঞানীরা আরেকটি ভাগের কথা বলেছেন সেটি হলো ঘ) মিশ্র বাক্য

ক) সরল বাক্য কাকে বল ?  উঃ যে বাক্যে একটি মাত্র সমাপিকা ক্রিয়া থাকে, তাকে সরল বাক্য বলা হয়।যেমন:- রাম পড়াশোনা করে। এই বাক্যটিতে একটি মাত্র সমাপিকা ক্রিয়া আছে। তাই এটি একটি সরল বাক্য।

) জটিল বাক্য কাকে বলে? উঃ যে বাক্যে একটি স্বাধীন সরল বাক্য থাকে এবং তার ওপর নির্ভরশীল এক বা একাধিক খন্ড বাক্য বা আশ্রিত বাক্য থাকে তাকে জটিল বাক্য বলে। যেমন: যেহেতু রামের শরীর খারাপ তাই আজ সে যেতে পারবে না।

গ) যৌগিক বাক্য কাকে বলে? উঃ এক বা একাধিক সরল বাক্য স্বাধীন অর্থ প্রাধান্য নিয়ে এক বা একাধিক সংযোজক অব্যয় দ্বারা যুক্ত হয়ে একটি মাত্র বাক্য গঠন করে তখন তাকে যৌগিক বাক্য বলে। যেমন:- রাম স্কুলে যাবে এবং তার ভাই বাড়িতে থাকবে।

ঘ) মিশ্র বাক্য কাকে বলে?  উঃ ভাষাচার্য সুনীতিকুম চট্টোপাধ্যায় এই মিশ্র বাক্যের কথা বলেছেন। যে বাক্যে সাধারণত সরল, জটিল এবং যৌগিক বাক্যের মধ্যে যেকোনো দুই প্রকার বাক্য যুক্ত হয়ে মিশ্র আকারে একটি বৃহত্তর বাক্য গঠন করে, তাকে বলা হয় মিশ্র বাক্য। যেমন- আমি নিজে রান্না করি এবং ভাত বেরে খাই, তা দাদার ভালো লাগে না অথচ আমাকে কখনো সাহায্য করে না।

জটিল বাক্য থেকে সরল বাক্য

বাক্যের রূপান্তর –বাক্যের অর্থ এক রেখে এক বাক্য থেকে অন্য বাক্যে পরিবর্তনের নাম বাক্যের রূপান্তর। মনে রাখতে হবে এখানে বাক্যে রূপান্তরের ক্ষেত্রে অর্থের কোন পরিবর্তন হবে না।  

বাক্যের রূপান্তর মূলত ছয় রকমের হয় যেমন- ১)সরল বাক্য থেকে জটিল বাক্যে রূপান্তর ২)সরল বাক্য থেকে যৌগিক বাক্যে রূপান্তর ৩) যৌগিক বাক্য থেকে সরল বাক্যে রূপান্তর ৪) যৌগিক বাক্য থেকে জটিল বাক্যের রূপান্তর ৫) জটিল বাক্য থেকে সরল বাক্যের রূপান্তর ৬) জটিল বাক্য থেকে যৌগিক বাক্যের রূপান্তর

বাক্য রূপান্তরের সাধারণ নিয়ম:-

জটিল বাক্য রূপান্তর:- কিভাবে বাক্যের রূপান্তর করতে হয় ১ যেকোনো বাক্যকে জটিল বাক্য রূপান্তর করতে গেলে সাধারণত ওই বাক্যের সঙ্গে অর্থ অনুযায়ী, যেমন- তেমন, যত- তত, যদি- তবে, যদি- তাহলে, যিনি- তিনি, যার- তার, যে- সে, যেই- অমনি ইত্যাদি অব্যয় যোগ করতে হবে। জটিল বাক্যে একটি প্রধান বাক্য থাকবে, তার ওপর নির্ভরশীল উপরের অব্যয় দ্বারা যুক্ত খন্ড বা আশ্রিত বাক্য থাকবে।

উদাহরণ:- “তুমি না গেলে আমিও যাব না” এই বাক্যটি একটি সরল বাক্য । একে জটিল বাক্যে রূপান্তর করতে গেলে হবে- “তুমি যদি না যাও তবে আমিও যাবো না”। এক্ষেত্রে যদি- তবে যোগ করে বাক্যটিকে জটিল বাক্যের রূপান্তর করা হয়েছে। এছাড়া আরও বেশ কিছু উদাহরণ দেওয়া হল:-

১) তুমি এলে আমি যাব।  (সরল বাক্য)
> যদি তুমি আসো তবে আমি যাব। (জটিল বাক্য)

২) হাঁড়িতে সামান্যই চাল ছিল।(সরল বাক্য)
> হাড়িতে যে চাল ছিল তা সামান্যই ছিল। (জটিল বাক্য)

৩) স্টেশনে পৌছালাম আর ট্রেনটি ছেড়ে দিল। (যৌগিক বাক্য)
> যখন স্টেশনে পৌছালাম তখন ট্রেনটি ছেড়ে দিল। (জটিল বাক্য)

৪) সকলে উপবেশন করিলে রাজশ্রী নিজেও বসিল।(সরল বাক্য)
> যখন সকলে উপবেশন করিল তখন রাজশ্রী নিজেও বসিল।(জটিল বাক্য)
(মনে রাখতে হবে, যেকোনো বাক্যকে জটিল বাক্যে রূপান্তর করতে গেলে, অর্থের যেন কোন পরিবর্তন না হয়। শুধুমাত্র উপরের উল্লেখিত অব্যয়গুলি যোগ করেই জটিল বাক্যের করতে হয়।)

যৌগিক বাক্যে রূপান্তর- যেকোনো বাক্যকে যৌগিক বাক্যে রূপান্তর করতে গেলে, সাধারণত ওই বাক্যের সঙ্গে অর্থ অনুযায়ী:- এবং, আর, অথচ, নতুবা, কিন্তু, অথবা ইত্যাদি সংযোজক অব্যয় যোগ করতে হবে। যৌগিক বাক্য সব সময় দুটি বা তার বেশি স্বাধীন বাক্য থাকে। এই বাক্যগুলি উপরে উল্লেখিত অব্যয় দ্বারা যুক্ত থাকে।

যেমন:- “অমল আশ্বাস দিলেও আমি রাজি হলাম না”- > “অমল আশ্বাস দিল কিন্তু আমি রাজি হলাম না” এই বাক্যটির প্রথম বাক্যটি সরল বাক্যে ছিল, তাকে কিন্তু অব্যয় দ্বারা যুক্ত করে দুটি বাক্যে রূপান্তর করে, যৌগিক বাক্য করা হয়েছে। আরো বেশ কিছু উদাহরণ, দেওয়া হল:-

১) যখন স্টেশনে পৌছালাম তখন ট্রেনটি ছেড়ে দিল। (জটিল বাক্য)
> স্টেশনে পৌছালাম আর ট্রেনটি ছেড়ে দিল। (যৌগিক বাক্য)
২) যদিও তিনি বড়লোক তবু তার অহংকার নেই। (জটিল বাক্য)
>তিনি বড় লোক কিন্তু তার অহংকার নেই।
৩) গ্রামের শেষ প্রান্তে যেখানে একটা বটগাছ আছে সেখানেই তার বাড়ি। (জটিল বাক্য)
> গ্রামের শেষ প্রান্তে একটা বটগাছ আছে এবং সেখানেই তার বাড়ি। (যৌগিক বাক্য)
৪) সঞ্জয় গরিব হলেও লোভী নয়।(সরল বাক্য)
>সঞ্জয় গরীব কিন্তু লোভী নয়।(যৌগিক বাক্য)

জটিল বাক্য থেকে যৌগিক বাক্যে রূপান্তর

সরল বাক্যে রূপান্তর:–  যেকোনো বাক্যকে অর্থাৎ যৌগিক এবং জটিল বাক্যকে, সরল বাক্যে রূপান্তর করতে গেলে, বাক্যটিকে প্রথমে একটি সমাপিকা ক্রিয়া আনতে হবে এবং সেই সঙ্গে জটিল বাক্যের এবং যৌগিক বাক্যের যে অব্যয়গুলি যুক্ত থাকে, সেগুলিকে সরিয়ে বাক্যটিকে অর্থ অনুযায়ী একটা বাক্যে করতে হবে। অর্থাৎ সরল বাক্যে:- যদি- তবে, যেহেতু- সেহেতু, যেমন- তেমন,  যা-তা, যখন- তখন ইত্যাদি জটিল বাক্য সূচক অব্যয় এবং নতুবা, অথবা, কিন্তু, এবং, নচেৎ ইত্যাদি যৌগিক বাক্যসূচক অব্যয়গুলি সরিয়ে সরল বাক্য করতে হবে।( আর সরল বাক্যে এইগুলি থাকবে না)

যেমন:- “অমল আশ্বাস দিল কিন্তু আমি রাজি হলাম না”। এই বাক্যটি একটি যৌগিক বাক্য কারণ, এতে কিন্তু অব্যয় দ্বারা দুটি বাক্য যুক্ত আছে। তাই এটিকে সরল বাক্য করতে গেলে কিন্তু অব্যয়টিকে সরাতে হবে। বাক্যটিকে যৌগিক বাক্যে করলে হবে- “অমল আশ্বাস দিলেও আমি রাজি হলাম না” আরো কিছু উদাহরণ দেওয়া হল:-

১) আকাশে মেঘ নেই অথচ বৃষ্টি পড়ল। (যৌগিক বাক্য)
> আকাশে মেঘ না থাকলে বৃষ্টি পড়ল।(সরল বাক্য)
২) যদি ভালো করে পড়াশোনা করো তাহলে রেজাল্ট ভালো হবে। ( জটিল বাক্য)
ভালো করে পড়াশোনা করলে রেজাল্ট ভালো হবে।(সরল বাক্য)

বাক্য চেনার টিপস:১) সাধারণত বাক্যের সঙ্গে,   যেমন- তেমন, যত- তত, যদি- তবে, যদি- তাহলে, যিনি- তিনি, যার- তার, যে- সে, যেই- অমনি ইত্যাদি অব্যয় যুক্ত থাকে তাহলে বাক্যটি জটিল বাক্য হবে।

২) এবং, আর, অথচ, নতুবা, কিন্তু, অথবা ,নচেৎ অব্যয় দ্বারা যুক্ত থাকলে, বাক্যটি যৌগিক বাক্য হবে।
৩) যদি বাক্যের মধ্যে উপরের উল্লেখিত কোন অব্যয় না থাকে, তাহলে বাক্যটি সরল বাক্য হবে।মাধ্যমিকে যেমন প্রশ্ন আসে:-
১) ঠিক ইসাবের মতো জামাটি না পেলে ও স্কুলে যাবে না। (যৌগিক বাক্যে পরিবর্তন করো )
উঃ ঠিক ইসাবের মতো জামাটি পেলে তবেই ও স্কুলে যাবে না।
২) আমাদের মধ্যে যারা ওস্তাদ তারা ওই কালো জলে হরিতকি ঘষতে।- বাক্যটি কোন শ্রেণীর?
ক) সরল বাক্য খ) জটিল বাক্য গ) যৌগিক বাক্য ঘ) মিশ্র বাক্য
উঃ খ)  জটিল বাক্য
৩) এইটুকু কাশির পরিশ্রমই সে হাঁপাইতে লাগিল।- বাক্যটি কোন শ্রেণীর?
ক) সরল বাক্য খ) জটিল বাক্য গ) যৌগিক বাক্য  ঘ) মিশ্র বাক্য
উঃ ক)সরল বাক্য
৪) বাবুটির স্বাস্থ্য গেছে কিন্তু শখ ষোলআনায় বজায় আছে। (সরল বাক্যে পরিণত কর।)
উঃ বাবুটির স্বাস্থ্য গেলেও শখ ষোল আনাই বজায় আছে।
৫) বয়স ত্রিশ বত্রিশের অধিক নয়, কিন্তু ভারী রোগা দেখাইলো।- এটি কোন শ্রেণীর বাক্য?
ক) সরল বাক্য খ)জটিল বাক্য গ)মিশ্র বাক্য ঘ)যৌগিক বাক্য
উঃ ঘ) যৌগিক বাক্য
৬) আমি মরিলে সে মরিবে। (জটিল বাকে রূপান্তর কর।)
উঃ যদি আমি মরি তাহা হইলে সেও মরিবে।
৭) সেই সম্মান ছিল দুর্লভ এবং তিনি তা পেয়ে ছিলেন। (সরল বাক্যে রূপান্তর কর)
উঃ দুর্লভ সম্মান তিনি পেয়ে ছিলেন।
৮) এখানে মন্দির ছিল এবং তা অত্যন্ত সুন্দর জটিল। (বাক্যের রূপান্তর কর)
উঃ এখানে যে মন্দিরটি ছিল তা অত্যন্ত সুন্দর।
৯) সাবধানে না চললে এই অবস্থা তোমারও হতে পারে। (যৌগিক বাক্যে পরিবর্তন করো)
উঃ সাবধানে না চললে কিন্তু এই অবস্থা তোমারও হতে পারে।
১০) ধরা পড়লে কিন্তু শাস্তি অনিবার্য। (সরল বাক্যে পরিবর্তন করো)
উঃ ধরা পড়লে শাস্তি অনিবার্য।

জটিল বাক্য রূপান্তর:-  ১ যেকোনো বাক্যকে জটিল বাক্য রূপান্তর করতে গেলে সাধারণত ওই বাক্যের সঙ্গে অর্থ অনুযায়ী, যেমন- তেমন, যত- তত, যদি- তবে, যদি- তাহলে, যিনি- তিনি, যার- তার, যে- সে, যেই- অমনি ইত্যাদি অব্যয় যোগ করতে হবে। জটিল বাক্যে একটি প্রধান বাক্য থাকবে, তার ওপর নির্ভরশীল উপরের অব্যয় দ্বারা যুক্ত খন্ড বা আশ্রিত বাক্য থাকবে।

উদাহরণ:- তুমি না গেলে আমিও যাব না”- এই বাক্যটি একটি সরল বাক্য । একে জটিল বাক্যে রূপান্তর করতে গেলে হবে- “তুমি যদি না যাও তবে আমিও যাবো না”। এক্ষেত্রে যদি- তবে যোগ করে বাক্যটিকে জটিল বাক্যের রূপান্তর করা হয়েছে। এছাড়া আরও বেশ কিছু উদাহরণ দেওয়া হল:-

১) তুমি এলে আমি যাব।  (সরল বাক্য)
> যদি তুমি আসো তবে আমি যাব। (জটিল বাক্য)
২) হাঁড়িতে সামান্যই চাল ছিল।(সরল বাক্য)
> হাড়িতে যে চাল ছিল তা সামান্যই ছিল। (জটিল বাক্য)
৩) স্টেশনে পৌছালাম আর ট্রেনটি ছেড়ে দিল। (যৌগিক বাক্য)
> যখন স্টেশনে পৌছালাম তখন ট্রেনটি ছেড়ে দিল। (জটিল বাক্য)
৪) সকলে উপবেশন করিলে রাজশ্রী নিজেও বসিল।(সরল বাক্য)
> যখন সকলে উপবেশন করিল তখন রাজশ্রী নিজেও বসিল।(জটিল বাক্য)
(মনে রাখতে হবে, যেকোনো বাক্যকে জটিল বাক্যে রূপান্তর করতে গেলে, অর্থের যেন কোন পরিবর্তন না হয়। শুধুমাত্র উপরের উল্লেখিত অব্যয়গুলি যোগ করেই জটিল বাক্যের করতে হয়।)

যৌগিক বাক্যে রূপান্তর-যেকোনো বাক্যকে যৌগিক বাক্যে রূপান্তর করতে গেলে, সাধারণত ওই বাক্যের সঙ্গে অর্থ অনুযায়ী:- এবং, আর, অথচ, নতুবা, কিন্তু, অথবা ইত্যাদি সংযোজক অব্যয় যোগ করতে হবে। যৌগিক বাক্য সব সময় দুটি বা তার বেশি স্বাধীন বাক্য থাকে। এই বাক্যগুলি উপরে উল্লেখিত অব্যয় দ্বারা যুক্ত থাকে।

যেমন:- অমল আশ্বাস দিলেও আমি রাজি হলাম না”- > “অমল আশ্বাস দিল কিন্তু আমি রাজি হলাম না” এই বাক্যটির প্রথম বাক্যটি সরল বাক্যে ছিল, তাকে কিন্তু অব্যয় দ্বারা যুক্ত করে দুটি বাক্যে রূপান্তর করে, যৌগিক বাক্য করা হয়েছে। আরো বেশ কিছু উদাহরণ, দেওয়া হল:-

১) যখন স্টেশনে পৌছালাম তখন ট্রেনটি ছেড়ে দিল। (জটিল বাক্য)
> স্টেশনে পৌছালাম আর ট্রেনটি ছেড়ে দিল। (যৌগিক বাক্য)
২) যদিও তিনি বড়লোক তবু তার অহংকার নেই। (জটিল বাক্য)
>তিনি বড় লোক কিন্তু তার অহংকার নেই।
৩) গ্রামের শেষ প্রান্তে যেখানে একটা বটগাছ আছে সেখানেই তার বাড়ি। (জটিল বাক্য)
> গ্রামের শেষ প্রান্তে একটা বটগাছ আছে এবং সেখানেই তার বাড়ি। (যৌগিক বাক্য)
৪) সঞ্জয় গরিব হলেও লোভী নয়।(সরল বাক্য)
>সঞ্জয় গরীব কিন্তু লোভী নয়।(যৌগিক বাক্য)

সরল বাক্যে রূপান্তর:যেকোনো বাক্যকে অর্থাৎ যৌগিক এবং জটিল বাক্যকে, সরল বাক্যে রূপান্তর করতে গেলে, বাক্যটিকে প্রথমে একটি সমাপিকা ক্রিয়া আনতে হবে এবং সেই সঙ্গে জটিল বাক্যের এবং যৌগিক বাক্যের যে অব্যয়গুলি যুক্ত থাকে, সেগুলিকে সরিয়ে বাক্যটিকে অর্থ অনুযায়ী একটা বাক্যে করতে হবে। অর্থাৎ সরল বাক্যে:- যদি- তবে, যেহেতু- সেহেতু, যেমন- তেমন,  যা-তা, যখন- তখন ইত্যাদি জটিল বাক্য সূচক অব্যয় এবং নতুবা, অথবা, কিন্তু, এবং, নচেৎ ইত্যাদি যৌগিক বাক্যসূচক অব্যয়গুলি সরিয়ে সরল বাক্য করতে হবে।( আর সরল বাক্যে এইগুলি থাকবে না)

যেমন:- “অমল আশ্বাস দিল কিন্তু আমি রাজি হলাম না”। এই বাক্যটি একটি যৌগিক বাক্য কারণ, এতে কিন্তু অব্যয় দ্বারা দুটি বাক্য যুক্ত আছে। তাই এটিকে সরল বাক্য করতে গেলে কিন্তু অব্যয়টিকে সরাতে হবে। বাক্যটিকে যৌগিক বাক্যে করলে হবে- “অমল আশ্বাস দিলেও আমি রাজি হলাম না”|আরো কিছু উদাহরণ দেওয়া হল:-

১) আকাশে মেঘ নেই অথচ বৃষ্টি পড়ল। (যৌগিক বাক্য)
> আকাশে মেঘ না থাকলে বৃষ্টি পড়ল।(সরল বাক্য)
২) যদি ভালো করে পড়াশোনা করো তাহলে রেজাল্ট ভালো হবে। ( জটিল বাক্য)
ভালো করে পড়াশোনা করলে রেজাল্ট ভালো হবে।(সরল বাক্য)

বাক্য চেনার টিপস:১) সাধারণত বাক্যের সঙ্গে,   যেমন- তেমন, যত- তত, যদি- তবে, যদি- তাহলে, যিনি- তিনি, যার- তার, যে- সে, যেই- অমনি ইত্যাদি অব্যয় যুক্ত থাকে তাহলে বাক্যটি জটিল বাক্য হবে।
২) এবং, আর, অথচ, নতুবা, কিন্তু, অথবা ,নচেৎ অব্যয় দ্বারা যুক্ত থাকলে, বাক্যটি যৌগিক বাক্য হবে।
৩) যদি বাক্যের মধ্যে উপরের উল্লেখিত কোন অব্যয় না থাকে, তাহলে বাক্যটি সরল বাক্য হবে।

সরল জটিল ও যৌগিক বাক্য mcq : 

১) ঠিক ইসাবের মতো জামাটি না পেলে ও স্কুলে যাবে না। (যৌগিক বাক্যে পরিবর্তন করো )
উঃ ঠিক ইসাবের মতো জামাটি পেলে তবেই ও স্কুলে যাবে না।

২) আমাদের মধ্যে যারা ওস্তাদ তারা ওই কালো জলে হরিতকি ঘষতে।- বাক্যটি কোন শ্রেণীর?
ক) সরল বাক্য খ) জটিল বাক্য গ) যৌগিক বাক্য ঘ) মিশ্র বাক্য
উঃ খ)  জটিল বাক্য

৩) এইটুকু কাশির পরিশ্রমই সে হাঁপাইতে লাগিল।- বাক্যটি কোন শ্রেণীর?
ক) সরল বাক্য খ) জটিল বাক্য গ) যৌগিক বাক্য  ঘ) মিশ্র বাক্য
উঃ ক)সরল বাক্য

৪) বাবুটির স্বাস্থ্য গেছে কিন্তু শখ ষোলআনায় বজায় আছে। (সরল বাক্যে পরিণত কর।)
উঃ বাবুটির স্বাস্থ্য গেলেও শখ ষোল আনাই বজায় আছে।

৫) বয়স ত্রিশ বত্রিশের অধিক নয়, কিন্তু ভারী রোগা দেখাইলো।- এটি কোন শ্রেণীর বাক্য?
ক) সরল বাক্য খ)জটিল বাক্য গ)মিশ্র বাক্য ঘ)যৌগিক বাক্য
উঃ ঘ) যৌগিক বাক্য

৬) আমি মরিলে সে মরিবে। (জটিল বাকে রূপান্তর কর।)
উঃ যদি আমি মরি তাহা হইলে সেও মরিবে।

৭) সেই সম্মান ছিল দুর্লভ এবং তিনি তা পেয়ে ছিলেন। (সরল বাক্যে রূপান্তর কর)
উঃ দুর্লভ সম্মান তিনি পেয়ে ছিলেন।

৮) এখানে মন্দির ছিল এবং তা অত্যন্ত সুন্দর জটিল। (বাক্যের রূপান্তর কর)
উঃ এখানে যে মন্দিরটি ছিল তা অত্যন্ত সুন্দর।

৯) সাবধানে না চললে এই অবস্থা তোমারও হতে পারে। (যৌগিক বাক্যে পরিবর্তন করো)
উঃ সাবধানে না চললে কিন্তু এই অবস্থা তোমারও হতে পারে।

১০) ধরা পড়লে কিন্তু শাস্তি অনিবার্য। (সরল বাক্যে পরিবর্তন করো)
উঃ ধরা পড়লে শাস্তি অনিবার্য।

গুরুত্বপূর্ণ কিছু সরকারি ওয়েবসাইট
wbcssc
wbmsc
wbpbe

Read More

Recent